সিলেটে চাঞ্চল্যকর ২ যুক্তরাজ্য প্রবাসীর মৃত্যু নিয়ে তদন্ত শুরু, লাশ দাফন সম্পন্ন

সংবাদ জমিন,অনলাইন ডেস্কঃ
ওসমানীনগরে দুই যুক্তরাজ্য প্রবাসীর মৃত্যু এবং ৩ জন গুরুতর অসুস্থ হওয়ার ঘটনার ৩ দিন পেরিয়ে গেলেও এখনো এ ঘটনার রহস্য উদ্‌ঘাটন হয়নি। তবে নিকট আত্মীয়দের জিজ্ঞাসাবাদ অব্যাহত রেখেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। একই সঙ্গে নিকট আত্মীয়সহ নিহত এবং অসুস্থদের মোবাইলের কল রেকর্ড খতিয়ে দেখছে পুলিশ। রফিকুল ইসলামের স্ত্রী হুসনে আরা ও ছেলে সাদিকুল ইসলামের অবস্থার কিছুটা উন্নতি হলেও মেয়ে সামিরা ইসলাম এখনো আশঙ্কাজনক অবস্থায় সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউ বিভাগে চিকিৎসাধীন। গত বুধবার রাতে ঘটনার সংবাদদাতা রফিকুল ইসলামের শ্যালক দেলোয়ার হোসেনের খবরের প্রেক্ষিতে ওসমানীনগর থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের হয়েছে। ঈুলিশ প্রশাসন আইনি প্রক্রিয়া শেষ করে পরিবারের নিকট যুক্তরাজ্য প্রবাসী রফিকুল ইসলাম ও তার ছেলে মাইকুল ইসলামের লাশ হস্তান্তর করলে গতকাল দুপুর ২টা ১৫ মিনিটে উপজেলার দয়ামীর ইউনিয়নের পারকুল মাদ্রাসা মাঠে পিতা-পুত্রের জানাজার পর নিজ গ্রাম দিরারাই খাতুপুর তাদের পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।

জানা গেছে,গত ২৫শে জুলাই রাতের খাবার শেষে প্রবাসী পরিবারের সকলে একটি কক্ষে ঘুমিয়ে পড়েন। পরদিন সকালে ডাকাডাকির পর তাদের সাড়াশব্দ না পেয়ে সকাল সোয়া ১১টায় জাতীয় সেবা ‘৯৯৯’ নম্বরে ফোন করেন রফিকুল ইসলামের শ্যালক দেলোয়ার হোসেন। খবর পেয়ে ওসমানীনগর থানা পুলিশ দরজা ভেঙে অচেতন অবস্থায় প্রবাসী ৫ জনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠালে কর্তব্যরত ডাক্তার পিতা ও ছেলেকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ব্যাপারে পুলিশের উর্দ্ধতন কর্মকর্তা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।