সিংগাইরে চুরি, ডাকাতি বৃদ্ধি : উদ্বিগ্ন সাধারণ মানুষ

 

স্টাফ রিপোর্টার ঃঃ
মানিকগঞ্জের সিংগাইরে করোনা-লকডাউনের সাথে পাল্লা দিয়ে চুরি, ডাকাতি বৃদ্ধি পেয়েছে। চুরি, ডাকাতির পাশাপাশি ঘটছে ছিনতাই ও অপহরণ। মলম পার্টিও মাঠে নেমেছে। এসব বৃদ্ধির ফলে সাধারণ মানুষ এখন বেশ উদ্বিগ্ন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সম্প্রতি পাইলট বালিকা বিদ্যালয়ের সামনে থেকে গোবিন্দল গ্রামের কামাল নামে এক ব্যক্তির বাই সাইকেল চুরি যায়। এর আগে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কার্যালয়ের নিকটে গভীর রাতে একটি বিরিয়ানি হাউজের তালা ভেঙ্গে চুরির চেষ্টা করলে মহল্লাবাসীর ধাওয়া খেয়ে চোরের দল পালিয়ে যায়। ইতিপূর্বে ঐ বিরিয়ানি দোকানের মালিকের ছেলের বাইসাইকেল ও তার দোকানের ৫টি গ্যাস সিলিন্ডার চুরি যায়।

পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠ থেকে খেলেশ্বর গ্রামের এক নারীর মোবাইল সেট ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটে। গরুর হাট থেকে অটো রিকশার ব্যাটারী চুরির কালে চোর হাতে-নাতে ধরা পড়ে। ঐ রিকশা মালিকের এর আগে আরো ৪টি ব্যাটারী চুরি যায়।

চুরির ঘটনা ঘটে বালিকা বিদ্যালয়ের নিকটে এক ঔষুধের দেকানে। চোরের দল ৬ লক্ষ টাকার মালামাল নিয়ে যায়। আজিমপুর এলাকার অপর এক ঔষুধের দোকানেও চুরির ঘটনা ঘটে। চালককে অজ্ঞান করে পৌরসভার রঙ্গের বাজার থেকে অটো রিকশা নিয়ে যায় মলম পার্টি। পৌর সভার এক ভাড়াটের বাসায় ঢুঁকে স্বর্ণালংকার চুরি করে নিয়ে যায়।

এছাড়া পূবালী ব্যাংকের সামনে থেকে অটো রিকশা, অপর একটি বাসা থেকে সিএনজি, এক দিনমজুরের বাইসাইকেল, পৌরসভার পেছনে এক ফ্লাট বাসার ভাড়াটিয়ার টাকা ও স্বর্ণ, ভূমদক্ষিণ গ্রামের রায়হানের অটো রিকশা ও শহীদের পিকআপ চুরির ঘটনা ঘটে। অপরদিকে চান্দহর ইউনিয়নে নানীর বাড়ি চুরি করতে গিয়ে এক চোর ধরা পড়ে। মাদ্রাসা ছাত্রী অপহরণের ঘটনা ঘটে। অবশ্য মাদ্রাসা ছাত্রীকে উদ্ধারসহ দু’অপহরণকারীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

এ দিকে চুরির ঘটনার সাথে পাল্লা দিয়ে মাঝে-মধ্যে ঘটছে ডাকাতির ঘটনা। ধল্লা পুলিশ ফাঁড়ির নিকটে ফোর্ডনগর সড়কে দুর্ধর্ষ গণ ডাকাতির ঘটনা ঘটে। ডাকাতির ঘটনায় খোঁয়া যাওয়া একটি মিনি ট্রাক উদ্ধার করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। অপর একটি ডাকাতির ঘটনা ঘটে উপজেলার বায়রা ইউনিয়নের গারাদিয়া গ্রামে। এ ব্যাপারে পুলিশ ১ জনকে গ্রেফতার করেছে।

সিংগাইর থানার ওসি আসলাম হেসেন সংবাদ মাধ্যমকে জানান, চোর ধরার চেষ্টা চলছে, এখন পর্যন্ত কোন চোর ধরা পড়েনি। তথ্য সূত্র-ইত্তেফাক

শিরোনাম