ঘিওরের ট্রিপল মার্ডার মামলায় ২৪ ঘন্টার মধ্যে চার্জশীট দাখিল

মানিকগঞ্জ প্রতিনিধিঃ
মানিকগঞ্জের ঘিওরের ট্রিপল মার্ডার মামলায় ২৪ ঘন্টার মধ্যে চার্জশীট দাখিল করেছে পুলিশ।

জানা গেছে, মানিকগঞ্জ জেলার ঘিওর থানাধীন বালিয়াখোড়া ইউনিয়নের আসাদুজ্জামান ওরফে রুবেল (৪২), পিতা-আব্দুল বারেক, মাতা- রেজিয়া, সাং-আঙ্গারপাড়া (আঙ্গুরপাড়া), থানা ঘিওর, জেলা- মানিকগঞ্জ ৮ মে রাত্রি অনুমান ৩.৩০ হতে ০৫.৩০ ঘটিকার মধ্যবর্তী সময় ঘুমিয়ে থাকা নিজ স্ত্রী ও দুই কন্যাকে প্রথমে মাথার পিছনে আগে থেকেই বাড়ির ফুল বাগানে লুকিয়ে রাখা দৈনন্দিন কাজে ব্যবহৃত দা দিয়ে আঘাত করেন, এরপর বালিশ চাপা দেয় এবং সেই দা গলায় চালিয়ে তার স্ত্রী মৃত লাভলী আক্তার (৩৯), মেয়ে মৃত লাজলী আক্তার ছোয়া (১৬), মেয়ে মৃত ইহা মনি কথা (১২) দেরকে জবাই করে
হত্যা নিশ্চিত করে।

এই বিষয়ে তাৎক্ষণিক সংবাদ প্রাপ্ত হয়ে ঘিওর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়, মৃতদেহের সুরতহাল প্রতিবেদন প্রস্তুত করে এবং মৃতদেহ ময়না তদন্তের জন্য মানিকগঞ্জ সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে। মানিকগঞ্জ জেলার সুযোগ্য পুলিশ সুপার, জনাব মোহাম্মাদ গোলাম আজাদ খান পিপিএম-বার মহোদয় এবং শিবালয় সার্কেল অফিসারের প্রত্যক্ষ তদারকী ও দিক নির্দেশনায় ঘটনাস্থল হতে হত্যার কাজে ব্যবহৃত অস্ত্র (ধারালো দা) সহ রক্তমাখা জামা কাপড় উদ্ধার পূর্বক জব্দ করে। তাৎক্ষনিক ঘিওর থানা পুলিশ কর্তৃক অভিযান পরিচালনা করে হত্যার সাথে জড়িত সন্দেহে আসাদুজ্জামান ওরফে রুবেল (৪২)কে গ্রেফতার করা হয়। এরপর হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে ঘিওর থানার মামলা নং- ০২, তারিখ ০৮/০৫/২০২২ ইং, ধারা- ৩০২ পিসি রুজু করা হয়।

মামলার ঘটনায় গ্রেফতারকৃত আসামী আসাদুজ্জামান ওরফে রুবেল (৪২) এর স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি বিজ্ঞ আদালত কর্তৃক রেকর্ড করানোর ব্যবস্থা করা হয়। মামলার ঘটনায় সাক্ষীদের জিজ্ঞাসাবাদ করে জবানবন্দি লিপিবদ্ধ করাসহ মানিকগঞ্জ সদর হাসপাতাল হতে মামলার ঘটনায় মৃত লাভলী আক্তার (৩৯), মৃত লাজলী আক্তার ছোয়া (১৬) এবং মৃত ইহা মনি কথা (১২) দের ময়না তদন্ত প্রতিবেদন সংগ্রহ করা হয়। তদন্তে জানা যায়, আসামী আসাদুজ্জামান ওরফে রুবেল (৪২) নানান ধরনের ঋনে জর্জরিত ছিলেন। স্ত্রী কন্যাদের নিয়ে সংসার চালানো ও ঋন পরিশোধের চিন্তায় হতাশাগ্রস্ত হয়ে এই জঘন্য হত্যাকাণ্ড ঘটান।

মামলা রুজুর পর ঘিওর থানা পুলিশ মামলার সমস্ত তদন্ত কার্যক্রম সু-সম্পন্ন করে কালবিলম্ব না করে ২৪ ঘন্টার মধ্যেই বিজ্ঞ আদালতে ন্যায় বিচারের স্বার্থে অভিযোগপত্র নং- ৪৩, তাং- ০৯/০৫/২২ খ্রিঃ দাখিল করেন।