ইস্ট ইন্ডিয়া নিয়ে সিরাজ উদ দৌল্লাহ রচিত গ্রন্থটি উপহার দিলেন প্রখ্যাত কলামিস্ট মোঃ আলতাফ হোসেনকে

নিজস্ব প্রতিনিধি ঃঃ
মহাকবি সিরাজ উদ দৌল্লাহ রচিত বাংলাদেশের কথা প্রথম খন্ড ইস্ট ইন্ডিয়া কম্পানীর শাসন ব্যবস্থা সফল বৈশিষ্ট্যমন্ডিত নিখূঁত মহাকাব্য গ্রন্থটি উপহার দিলেন নন্দিত লেখক, সাবেক জাতীয় ক্রীড়াবিদ, সভাপতি শারীরিক শিক্ষাবিদ সমিতি,চেয়ারম্যান গ্রিন ক্লাব, বরেন্য সাংবাদিক ও প্রখ্যাত কলামিস্ট মো. আলতাফ হোসেনকে।

মহাকাব্যের বৈশিষ্ট্য ১। কাহিনী ইতিহাস,ধর্মগ্রন্থ কিংবা কোনো ব্যক্তি যিনি রাষ্ট্রীয় পরিবর্তনে ভূমিকা রাখছেন এমন কিছু নিয়ে হতে হবে ২। সর্গে বিভক্ত হবে এবং ন্যূনতম ৮টি সর্গ থাকতে হবে ৩। বন্দনা সর্গ থাকতে হবে ৪।অলৌকিক চরিত্র থাকতে হবে ৫।কাহিনীর ব্যপ্তি অর্থাৎ কাহিনীর আদি,মধ্য এবং অন্তের সমম্বয় থাকতে হবে ৬। মিত ছন্দ অর্থাৎ অন্তমিল থাকতে হবে এবং প্রত্যেকটি লাইন দ্বিধা বিভক্ত হবে ৭।পূর্ববর্তী সর্গে পরবর্তী সর্গের কথা উল্লেখ থাকতে হবে। এখন আলোচনা করা যাক মহাকবি সিরাজ উদ দৌল্লাহর মহা কাব্যের প্রথম খন্ড নিয়ে ১।ইস্ট ইন্ডিয়ার কোম্পানীর শাসন ব্যবস্থা বাঙালি জাতির ইতিহাস নিয়ে রচিত ২। এটি ৮ সর্গে বিভক্ত ৩। বন্দনা সর্গ আছে ৪। অলৌকিক চরিত্র হিসেবে মহাকাব্যের তৃতীয় সর্গে বিধাতার ইশারার কথা উল্লেখ আছে।কবি তাঁর কল্পনায় ফকির মজনু শাহ চরিত্রটিকে অলৌকিক চরিত্রে রূপায়িত করেছেন ৫।ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানীর ইতিহাসের আদি,মধ্য এবং অন্তের সমন্বয় করা হয়েছে ৬।মিত ছন্দ ব্যবহার করা হয়েছে। এবং প্রত্যেকটি লাইনের একদিকে ৮ অক্ষর এবং অন্যদিকে ৬ অক্ষর হিসেবে দ্বিধা বিভক্ত করা হয়েছে ৭। পূর্ববর্তী সর্গে পরবর্তী সর্গের কথা উল্লেখ আছে। অতএব, মহাকবি সিরাজ উদ দৌল্লাহর মহাকাব্যের ১ম খন্ডে সকল বৈশিষ্ট্য সফল ভাবে ফুটে ওঠেছে। যেটি পৃথিবীর ইতিহাসে খুব কম সংখ্যক মহা কাব্যেই সম্ভব হয়েছে এবং বাংলা সাহিত্যে এটিই একমাত্র শতভাগ বৈশিষ্ট্যমন্ডিত মহাকাব্য।
উল্লেখ্য যে এটি ব্যতীত বাংলা সাহিত্যে মিত ছন্দে রচিত আর কোনো মহাকাব্য নেই।

শিরোনাম